বিজ্ঞানের মজার কিছু বিষয়

3629

আমাদের চারপাশের ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বিজ্ঞানের নানা কিছু। এসব জিনিসগুলোর অনেক মজাদার। তেমন কিছু তথ্য নিয়ে আজকের আলোচনা।

ডিএনএ সমাচার...

জীবদেহের গঠন ও ক্রিয়াকলাপ নিয়ন্ত্রনের জিনগত একক হল ডিএনএ (DNA)। ইহা ডি অক্সি রাইবো নিউক্লিক অ্যাসিড নামে পরিচিত। মজার বিষয় হল, প্রতিটি মানব কোষের জেনেটিক কোডে ২৩টি ডিএনএ অণু রয়েছে। যেখানে প্রতিটি ডিএনএ তে ৫০০ থেকে ২৫ মিলিয়ন নিউক্লিওটাইড জোড়া থাকে। এই ধরনের ডিএনএ অণুগুলো সাধারণত ১.৭ থেকে ৮.৫ সেমি পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে, প্যাঁচানো ছাড়া অবস্থায় গড় দৈর্ঘ্য ৫ সেমি হয়ে থাকে। মানুষের শরীরের প্রায় ৩৭ ট্রিলিয়ন কোষ রয়েছে। এখন যদি আপনি প্রতিটি কোষকে ডিএনএ দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয় তাহলে এর মোট দৈর্ঘ্য দাড়ায় ২×১০১৪ মিটার অর্থাৎ ১৭টি বৃত্তকার প্লুটো গ্রহকে ঘুরে আস্তে যে পথ অতিক্রম করতে হয় সেই পথ অর্থাৎ ১.২×১০১৩ মিটার/প্লুটোর বৃত্তাকার পথ। আরও সোজাভাবে হিসাব করলে বলা যায়, সূর্য থেকে প্লুটো গ্রহ পর্যন্ত অতিক্রান্ত দূরত্ব।

একটি মানুষ তার দেহের কোষের দশগুণ বেশি ব্যাকটেরিয়া কোষ বহন করে। কিভাবে?

আমরা প্রতিনিয়ত জীবাণু যেমনঃ ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাস ইত্যাদি থেকে দূরে থাকার জন্য প্রতিনিয়ত হাত ধুয়ে থাকি, মুখে পানি ছিটাই, হাচি আসলে মুখে হাত দিয়ে থাকি। আসলে কি তাদের ছাড়া থাকতে পারি??

কিন্তু সত্যি কথা বলতে আমরা কিন্তু এদের উপর নির্ভর করে থাকি। আইডোহা ইউনিভার্সিটির মাইক্রোবায়োলোজিস্ট ক্যারোলিন বোহাকের মতে, আমাদের দেহে যেই ব্যাকটেরিয়া বসবাস করে তা হাফ গ্যালন জগ ভর্তি করতে পারে। তাছাড়া মানব কোষের চেয়ে ১০ গুন বেশি ব্যাকটেরিয়া কোষ থাকে মানুষের শরীরে। আসলে, আমরা তাদের ছাড়া বেঁচে থাকতে পারবো না।

ব্যাকটেরিয়া যে রাসায়নিক পদার্থ উৎপাদন করে তা আমাদের খাদ্য থেকে শক্তি এবং পুষ্টি উৎপন্ন করতে সাহায্য করে। জীবাণু বিহীন প্রাণী তাদের ওজন ঠিক রাখতে সাধারণ প্রাণী থেকে ৩ গুন বেশি ক্যালরি খরচ করে। যখন সেই প্রাণীকে পরে ব্যাকটেরিয়ার ভ্যাকসিন/ডোজ দেওয়া হয় তখন তাদের শরীরের চর্বি মাত্রা কমে যায়, এমনকি তারা আরও বেশি খেতে পারে না। তাই ব্যাকটেরিয়ার বিমুক্ত হওয়া নিয়ন্ত্রণ করা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে যায়।

২০০০ কিঃমির উপর লম্বা গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ হচ্ছে পৃথিবীর দীর্ঘতম প্রাকৃতিক প্রবাল রিফ।

গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ হল বিশ্বের সব থেকে লম্বা প্রবাল রিফ। অস্ট্রেলিয়ার উত্তরাঞ্চলের কুইন্সল্যান্ড অঞ্চল জুড়ে এই রিফের অবস্থান। এর আয়তন ৩ লক্ষ ৪৮ হাজার বর্গ কিঃমিঃ। এই প্রবাল প্রাচীর অঞ্চলে রয়েছে বৈচিত্র্যময় মহীসোপান। যার আয়তন ২৫০ কিঃমিঃ। এই প্রাকৃতিক প্রবাল প্রাচীরের ভিতরের দিকে পানির সর্বোচ্চ গভীরতা ২০০০ মিঃ।

প্রবাল রিফের জুড়ে রয়েছে ছোটখাটো বালুময় প্রবালদ্বীপ, বড় বড় পাথুরে দ্বীপসহ ৯০০ এর অধিক ছোট-বড় দ্বীপ। এসব দ্বীপের মধ্যে অনেকগুলোর উচ্চতা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১,১০০ মিটারের উপরে।

গ্রেট ব্যারিয়ার রিফকে বলা হয় বিপন্ন ও বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীদের অভয়ারণ্য। এই বিশাল প্রবাল প্রাচীর জুড়ে রয়েছে অসংখ্য বিপন্ন এবং বিলুপ্তপ্রায় প্রাণী। এর মধ্যে রয়েছে ৩০টি বিরল প্রজাতির তিমি, শুশুক এবং ডলফিন ক্লোনফিশ, রেড থ্রোট এমপেরর, রেড ব্যাস, একাধিক প্রজাতির স্ন্যাপার ও কোরাল-ট্রাউট সহ ১,৫০০ প্রজাতির মাছ। এতে রয়েছে ১৭ প্রজাতির সাপ ও ৬ প্রজাতির কচ্ছপ। যার মধ্যে সবুজ কচ্ছপ (Green Sea Turtle) সব থেকে বিরল প্রজাতির। এতে আরও রয়েছে ১২৫ প্রজাতির শার্ক আর বিভিন্ন প্রজাতির লবনাক্ত পানির কুমির। এছাড়া আরও আছে সাত প্রজাতির ব্যাঙ, পাখি সহ অনেক ধরনের জীবজন্তু। বিজ্ঞানীরা একে মিনি ইকোসিস্টেম বলে অভিহিত করেছেন। ১৯৮১ সালে গ্রেট ব্যারিয়ার রিফকে বিশ্ব হেরিটেজ সাইটে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। CNN এই প্রবাল প্রাচীরকে পৃথিবীর প্রাকৃতিক আশ্চর্যগুলোর একটি বলে ঘোষণা করে। অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড ন্যাশনাল ট্রাস্ট এই রিফকে কুইন্সল্যান্ড রাজ্যের প্রতীক হিসেবে ঘোষণা করে।

একটি মানুষ তার জীবনদশায় যে পরিমান পথ হেঁটে অতিক্রম করেন তা পৃথিবীর চারপাশে প্রায় 5 গুণ হাঁটার সমতুল্য। 

একজন মানুষ দিনে পরিমিতভাবে ৭৫০০ ধাপ হেঁটে অতিক্রম করেন। এখন যদি একজন মানুষ দৈনিক গড় হাঁটা বজায় রেখে আশি বছর পর্যন্ত হাঁটে তাহলে তাঁর জীবদ্দশায় প্রায় ২১৬,২৬২,৫০০ টি পদক্ষেপ দেওয়া বা ধাপ অতিক্রম সম্ভব। অর্থাৎ এতোটি ধাপ দেওয়া মানে ১১০,০০০ মাইল দূরত্ব অতিক্রম করা পথ যা পৃথিবীর চারপাশে প্রায় 5 গুণ হাঁটার সমতুল্য।

মাইক্রো ইলেক্ট্রনিক্সের পরতে পরতে ন্যানো প্রযুক্তির ব্যবহার

ন্যানো টেকনোলজির গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রয়োগ হল মাইক্রো ইলেক্ট্রনিক্সে ন্যানোপ্রযুক্তির ব্যবহার। বর্তমানে আধুনিক প্রযুক্তির উন্নতির ফলে মাইক্রো বা ন্যানো কম্পিউটার, ন্যানো ডিভাইস ইত্যাদির উদ্ভব হচ্ছে। ন্যানো ডিভাইসগুলোতে কি কি গুণাবলি থাকবে, ট্রানজিস্টরের কত ছোট হবে, ডিভাইসগুলোর প্রসেসর স্পিড কেমন হবে ইত্যাদি নিয়ে গবেষকরা প্রতিনিয়ত গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে।

এই গবেষণার কারণ ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইসগুলোর চিপে সার্কিটের দৈর্ঘ্য ছোট করা। বিজ্ঞানীদের বলেন, একটি চিপে অনেক বেশি ট্র্যানজিস্টার রাখতে পারলে ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইসগুলোর সাইজ আরো ছোট এবং বেশি শক্তিশালী করা সম্ভব। ফলে ডিভাইসটির খরচ কমবে, প্রসেসরের গতি অনেক বেশি হবে।

আচ্ছা, একটা ট্রানজিস্টরকে কি ছোট করা যায়?? আর গেলেও কত ছোট করা সম্ভব?

ট্রানজিস্টরের গেইট-লেংথ একটা নির্দিষ্ট সীমার নিচে ছোট করা সম্ভব হয় না। কারণ প্রচলিত মাইক্রো-ফেব্রিকেশন পদ্ধতি একটা নির্দিষ্ট সীমার নিচে স্পষ্ট ফিচার-সাইজ তৈরি করতে পারে না। তাছাড়া ডিভাইসের আকার ন্যানোমিটারের স্কেলে থাকলে কোয়ান্টাম ক্রিয়া সক্রিয় হয় ফলে ডিভাইসের বিভিন্ন ফাংশন ব্যাখ্যা করা সম্ভব হয় না। ম্যাক্রোস্কেলে এসব কোয়ান্টাম প্রভাব দেখা যায় না। এর মূল কারণ হলো যখন অসংখ্য অণুর সমন্বয়ে একটা ম্যাক্রোজগৎ তৈরি হয়, ফলে কোয়ান্টাম ক্রিয়া নিস্ক্রিয় অবস্থায় থাকে ফলে গতানুগতিক বৃহৎবস্তুর আচরণ দেখা যায়, যা অণুগুলোর মধ্যে মিথস্ক্রিয়ার গড় ফলাফল।

বর্তমান সময়ের কম্পিউটারগুলো আকারে অনেক ছোট কিন্তু অনেক বেশি শক্তিশালী এবং দামেও অনেক সস্তা। বর্তমান সময়ের কম্পিউটার প্রসেসর ১০০ থেকে ২০০ ন্যানোমিটার ট্র্যানজিস্টর তৈরি হয়ে থাকে এবং সামনে এর সাইজ আরো কমানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। এই সবই সম্ভব হচ্ছে ন্যানো টেকনোলজির ফলে।

একটি রক্তকোষ, মাত্র ৬০ সেকেণ্ডে পুরো শরীর প্রদক্ষিণ করতে পারে।

অধিকাংশ মানুষের শরীরে প্রায় ৫ লিটার বা তার অধিক রক্ত থাকে আর একজন মানুষ গড়ে প্রতি বিট হৃদস্পন্দনের সঙ্গে ৭০ মিঃলিঃ রক্ত পাম্প করে থাকে। আমরা জানি, একজন সুস্থ মানুষের হৃদপিন্ড প্রতি মিনিটে প্রায় ৭০ বার ধাক্কা দেয়।

এখন যদি, রক্তের পরিমাণকে হৃদস্পন্দনের বিট সংখ্যা দিয়ে গুণ করেন গুনফল ৪.৯ পাবেন, যা আপনার পুরো শরীরের রক্তের পরিমানের সমান প্রায়।

আজব মহাবিশ্ব...!

  • ফার্মি বাবলস

প্রায় ২০ লাখ বছর আগে আমাদের নীহারিকা মিল্কিওয়েব কেন্দ্রস্থলে এক ভয়াবহ প্রচন্ড বিস্ফোলণ ঘটেছিল। বিস্ফোরণের শক্তি এত তীব্র ছিল যে, গ্যাস ও অন্যান্য পদার্থ ঘণ্টায় ২০ লাখ মাইল গতিতে বাইরের দিকে ধাবিত হয়েছিল। এর ফলে নীহারিকার সমতলের প্রায় ৩০ হাজার আলোকবর্ষ উপরে ও নিচে গ্যাসের মেঘমালার উত্তাল তরঙ্গ সৃষ্টি হয়। নীহারিকার কেন্দ্রভাগে গামা রশ্মির প্রভার মধ্যে এই বিশালাকায় কাঠামো দেখা যায় যেখানে রঞ্জনরশ্মি ও বেতার তরঙ্গে বেলুনাকৃতির বৈশিষ্ট্য পরিলক্ষিত হয়। এই বিশালাকার কাঠামোটি ফার্মি বাবলস নামে পরিচিত।

  • চাঁদে চৌম্বকক্ষেত্র

চাঁদের সবচেয়ে বড় রহস্যের ব্যাপার হলো চাঁদের চৌম্বক ক্ষেত্র। চাঁদের কোন চৌম্বকক্ষেত্র নেই। কিন্তু ১৯৬০ এবং ১৯৭০ সালে পাওয়া চাঁদের কয়েক টুকরো পাথর পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছিল, সেই পাথরগুলোতে চৌম্বক ক্ষেত্র আছে।

মজার ব্যাপার এই যে চাঁদে যদি সত্যিই কোন চৌম্বক ক্ষেত্র না থাকে, তাহলে পাথরগুলোতে চুম্বকক্ষেত্র আসলো কিভাবে??

এ নিয়ে ব্যাপক গবেষনার পর বিজ্ঞানীরা পরে বের করতে সক্ষম হয়েছিল যে, চাঁদে আগে কোন এক সময়ে চৌম্বক ক্ষেত্র ছিল ।

চাঁদের উপর গবেষণা করতে গিয়ে বিজ্ঞানীরা দাবি করেন, চুম্বকত্বটি ১২০ মাইলের প্রশস্তের কোনো গ্রহের হতে পারে, যা চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে প্রায় ৪.৫ বিলিয়ন বছর পূর্বে ধ্বংস হয়েছিল, এবং এর চুম্বকীয় পদার্থ ছড়িয়েছিল। আরেকদল বিশ্বাস করেন যে, চাঁদের ছোটমাত্রার চুম্বকীয় ক্ষেত্র আছে, যা সাম্প্রতিক প্রভাবগুলির সাথে সম্পর্কিত হতে পারে।

  • ছায়াপথ

মহাবিশ্ব ৫০,০০০,০০০,০০০ ছায়াপথের সমন্বয়ে গঠিত। একটি সাধারণ গ্যালাক্সি মধ্যে ১০০,০০০,০০০,০০০,০০০ এবং ১,০০০,০০০,০০০,০০০ তারা মধ্যে আছে। শুধুমাত্র আকাশগঙ্গার মধ্যে ১০০ বিলিয়ন পৃথিবীর মত গ্রহ হতে পারে। তবুও কি আমরা একা?

বেতেলজিউস যদি সুপারজায়েন্ট থেকে সুপারনোভা বিস্ফোরিত হয় তবে পৃথিবীর আকাশ দুই মাস ধরে আলোকিত থাকবে। এটা যে কোন সময় ঘটতে পারে, আজ, কাল বা কয়েক হাজার বছরের মধ্যে।

বেতেলজিউস পৃথিবীর সবচেয়ে উজ্জ্বল তারাগুলোর একটি। যদিও এটি পৃথিবী থেকে ৪৩০ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত। বেতেলজিউসকে পৃথিবীর সবচেয়ে উজ্জ্বল তারা বলা হয় কারণ বেলেলজিউস একটি সুপারজায়েন্ট তারকা-মহাবিশ্বের সবথেকে বড় তারা। বেতেলজিউসের সূর্যের থেকে প্রায় ১০,০০০ গুণ উজ্জ্বলতা রয়েছে এবং এর ব্যাসার্ধ সূর্যের ৩৭০ গুণ।

যদি এটি আমাদের সূর্যের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত, তবে তার ব্যাসার্ধটি মঙ্গলের কক্ষপথ অতিক্রম করবে। কারণ এটি তার জীবদ্দশার শেষের কাছাকাছি, বেতেলজিউসের একটি সুপারনোভাতে বিস্ফোরিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মস্তিষ্কে তৈরি হওয়া বিদ্যুৎ একটি বৈদ্যুতিক বাতি জ্বালানোর জন্য যথেষ্ট

মানব মস্তিষ্কে ১০০ বিলিয়নের মত নিউরন বা স্নায়ুকোষ রয়েছে। তা যদি এখন থেকে গুনা শুরু করি ৩,০০০ বছরের বেশি সময় লেগে যাবে। আমাদের হাসি, কান্না, স্বপ্ন দেখা, চিন্তাভাবনা, নড়াচড়া সবকিছুই সম্ভব হচ্ছে এই নিউরন কোষগুলোর মধ্যে রাসায়নিক ও বৈদ্যুতিক সংকেতের আদানপ্রদানের ফলে। মস্তিষ্কের এই কাজগুলো বিরামহীনভাবে চলতে থাকে। একটি কম্পিউটার গ্রাহকের কাছে যে পরিমাণ বার্তা আদানপ্রদান করে, মস্তিষ্কের নিউরনগুলো তার চেয়ে অনেক বেশি তথ্য আদানপ্রদান করে থাকে। ধরুন আপনার পায়ে কোন মশা বসেছে, এর স্পর্শানুভূতি সৃষ্টিকারী নিউরন প্রথমে সুষুম্না কাণ্ডে সংকেত পৌঁছে দেয়, সেখান থেকে মস্তিষ্কে ঘণ্টায় ২৪১ কিলোমিটার বেগে সংকেত পৌঁছে যায়। এরপর মস্তিষ্ক মোটর নিউরনের মাধ্যমে ঘণ্টায় ৩২২ কিলোমিটার বেগে পায়ের পাতা নাড়ানোর সংকেত পাঠায়। এই সমস্ত নিউরনের বৈদ্যুতিক সংকেতগুলো একত্র করা সম্ভব হয়, তা দিয়ে একটি বাতি জ্বালানো সম্ভব।

 

তথ্যসুত্রঃ

লিখাটি নিয়ে আপনার অভিমত কি?