চিলের সর্পিলাকার উড্ডয়নের নেপথ্য রহস্য

1251

চিল এর সর্পিলাকার উড্ডয়ন

আকাশে ডানা মেলে উড়ছে চিল...দেখতে কতই না ভাল লাগে! আচ্ছা, আপনারা কি কেউ কখনো চিল-কে শিকার করতে দেখেছেন? যদি দেখে থাকেন, তাহলে নিশ্চয়ই দেখেছেন - শিকার করার সময় চিল আকাশ থেকে হঠাৎ পাক খেতে খেতে তীব্র বেগে নেমে এসে ভূমি ছোয়ার ঠিক আগ মূহুর্তে শিকারকে ছোঁ মেরে নিয়ে যায়। এখন প্রশ্ন জাগতেই পারে, কেন চিল সোজা উড়ে না এসে এভাবে ঘুরে এসে শিকার ধরতে গেল? আসুন, তবে জেনে নেয়া যাকঃ

 

শিকারি পাখি চিল, বাজ কিংবা ঈগলের রয়েছে সুতীক্ষ্ণ দৃষ্টি, মানুষের চেয়েও কয়েক গুণ বেশি। খাবারের সন্ধানে উড়তে উড়তে বেশ উঁচুতে উঠে যায় এরা, যাতে ভূমিতে অনেক জায়গা জুড়ে বিস্তৃত হয় এদের দৃষ্টি সীমা।

আমরা মানুষেরা একদম স্থির হয়ে মাথা বা চোখ না নড়িয়ে জগতের যতটুকু জায়গা এক বারে দেখতে পারি, তা হচ্ছে আমাদের দৃষ্টিক্ষেত্রএই দৃষ্টিসীমা যতটুকুই হোক না কেন, সব জায়গা আমরা ঝকঝকে দেখতে পাই না। চোখের সামনে অল্প একটু জায়গা জুড়েই কেবল সুস্পষ্ট দেখি আমরা, ডানে-বামে ঝাপসা হয়ে আসে আমাদের দৃষ্টি।

 

চিলের মতো শিকারি পাখিদের ক্ষেত্রে মজার ব্যাপার হচ্ছে, এদের প্রতিটি চোখে দুটি করে ফোবিয়াস সেন্ট্রালিস থাকে: একটি গভীর ফোবিয়াস সেন্ট্রালিস, অন্যটি অগভীর ফোবিয়াস সেন্ট্রালিস। দুই ফোবিয়াসই তীক্ষ্ণ ছবি গঠনে সাহায্য করে, তবে দ্বিতীয়টির তুলনায় প্রথমটির ছবি বহুগুণে স্পষ্ট।

চিল এর সর্পিলাকার উড্ডয়ন-১

কাজেই অনেক উঁচুতে উঠে চিল যখন কোনো শিকার খুঁজে পেয়ে তাকে টার্গেট করে, শিকারটিকে সে সব সময় তার গভীর ফোবিয়াসের আওতায় রাখতে চায়। তাতে নামার সময় শিকারটি হঠাৎ হারিয়ে ফেলার ভয় থাকে না। অদ্ভুত ব্যাপার হচ্ছে, চিলের গভীর ফোবিয়াস সেন্ট্রালিস তার রেটিনার এমন জায়গায় গঠিত, যেখানে কোনো বস্তুর ছবি ফেলতে হলে, বস্তুটিকে চিলের চোখের সোজা সামনে হলে চলবে না। বরং চিলের ঠোঁট বরাবর একটি সোজা রেখা কল্পনা করলে, তার প্রায় ৪০ ডিগ্রি ডানে বা বামে বস্তুটির অবস্থান হতে হবে।

চিল এর সর্পিলাকার উড্ডয়ন-২

আর এ জন্য চিল শিকারের দিকে সোজা সরলরেখায় না নেমে বক্রপথে এমনভাবে নামে যেন তার মাথাটি সোজা থাকে কিন্তু চোখের গভীর ফোবিয়াসের দিক সব সময় ৪০ ডিগ্রি কোণে শিকারের দিকে থাকে। এটাই হল চিলের সর্পিলাকার গতিপথের নেপথ্য রহস্য।

 

 

কিন্তু তারপরও আরও একটি প্রশ্ন থেকেই যায়‍! চিল এত কষ্ট করে বাঁকানো লম্বা পথে না নেমে তারা তো সোজাই নামতে পারে,  মাথাটা কেবল সোজা পথের সাথে একপাশে হেলিয়ে রাখলেই হয়। তাহলে কেন এত ঝামেলা করতে যায় তারা?

চিল এর সর্পিলাকার উড্ডয়ন-৩

আসলে পাখি যখন আকাশে ভাসে, তার শরীর ও ডানার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া বায়ু ধাক্কা দেয় তাকে, টেনে ধরে রাখতে চায় পেছনে। পাখির শরীর যদি টানটান সোজা থাকে, তাহলে দুপাশে বায়ুর চাপের ভারসাম্য থাকে, পাশ দিয়ে সাবলীলভাবে বায়ু বয়ে যায়। তখন শরীরের উপর বায়ুর টান সবচেয়ে কম হয়। কিন্তু একদিকে মাথা বাঁকিয়ে রাখলে বায়ু জোরালো ধাক্কা দেয় শরীরে, তখন দুই-তিন গুণ পর্যন্ত বেড়ে যেতে পারে বায়ুর টান। ফলে পাখির গতি কমে যাবে বেশ অনেকটা, ক্লান্ত হয়ে পড়বে তাড়াতাড়ি, আর দ্রুত নামার প্রশ্নই উঠে না তখন। বরং লম্বা বাঁকানো পথেই সময় লাগে কম। তাই চিল এই সর্পিলাকার গতিপতে এসে শিকার করে।

 

কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ মাভেরিক ভাই

লিখাটি নিয়ে আপনার অভিমত কি?

2 COMMENTS